1. info@dailyjanatarbarta.com : Admin :
  2. admin2@dailyjanatarbarta.com : Editor Janatar Barta : Editor Janatar Barta
  3. araf@yopmail.com : araf :
  4. editor@dailyjanatarbarta.com : JanatarBarta Editor : JanatarBarta Editor
  5. test@yopmail.com : test :
সংবাদ শিরোনাম :
ভোলার মেঘনায় মালবাহী কার্গোতে ডাকাতি! দূই জলদস্যুকে ধরে ফেললো কোস্ট গার্ড প্রকাশিত কাল্পনিক সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানালেন বিজেপি নেতা জামালউদ্দিন চকেট সিপিডিএ ‘র দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে ক্যারিয়ার উন্নয়ন সপ্তাহ ১৫-২১ অক্টোবর সারাদেশে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু ৬ মাস ২১ দিন পর দলীয় কার্যালয়ে রিজভী কোনো নির্বাচন নির্বাচন খেলা হবে না: ওবায়দুল কাদের সারাদেশে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে মাঠ প্রশাসন মূল চালিকাশক্তি: প্রধানমন্ত্রী ভোলার মেঘনায় ৮ টি মালবাহী কার্গো জাহাজে ডাকাতির অভিযোগ! পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত

ভোলার আলো’র সম্পাদক বেল্লাল নাফিজের উপর সন্ত্রাসী হামলা

  • পোস্টের সময়কাল : মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই, ২০২১
  • ১০৩ মোট ভিউস্

ভোলার জনপ্রিয় অনলাইন ভোলার আলো ডটকম এর সম্পাদক বেল্লাল নাফিজের উপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) সন্ধ্যার দিকে ভোলা সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসী হামলায় বেল্লালসহ ২জন গুরুত্বর অসুস্থ্য। তারা বর্তমানে ভোলা ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।
আহত সাংবাদিক বেল্লাল নাফিজ জানান, ভোলার রাজাপুরের মাদক কারবারীদের নিয়ে গত ২০-২৫দিন পূর্বে একটি নিউজ প্রকাশ করা হয়েছিল। সেই নিউজ এ মাদকাসক্ত সন্ত্রাসী মালেকসহ বেশ কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছিল। ঈদের ছুটিতে বেল্লাল নাফিজ তার গ্রামের বাড়ীতে যান। ওই নিউজ প্রকাশ করায় সন্ত্রাসী মালেক (২৬) বেল্লালের উপর প্রতিশোধ নেয়ার চেষ্টায় থাকে। মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে তিনি তার এলাকায় হাটছিলেন। এমন সময় ৫নং ওয়ার্ডে বেল্লালকে একা পেয়ে মাদকাসক্ত সন্ত্রাসী মালেক তার উপর ধারালো ছুরি দিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা চালায়। এতে বেল্লাল নাফিজের মাথায় গুরুত্বর ক্ষত হয়। এছাড়াও তার শরীরের ঘাড় ও পেটে ছুরির আঘাতে ক্ষত হয়। এসময় বেল্লাল ডাক-চিৎকার করলে স্থানীয় সাইদুল ইসলাম (২৫) নামের এক যুবক তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলেও তার উপরও ওই সন্ত্রাসী চড়াও হয়। তাকেও ছুরি দিয় আঘাত করে। এতে তার ডান হাত কেটে যায়। এসময় স্থানীয় লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসী মালেক পালিয়ে যায়।
তাৎক্ষনিকভাবে বেল্লাল নাফিজ বিষয়টি ভোলা সদর মডেল থানায় অবহিত করলে এসআই ফরিদ, এসআই মনিরসহ তাদের ফোর্স ঘটনাস্থলে গিয়ে বেল্লাল নাফিজ ও সাইদুল ইসলামকে উদ্ধার করে ভোলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে বেল্লালের মাথায় অন্তত ৬-৭টি সেলাই করতে হয়েছে। এছাড়াও সাইদুল ইসলামের হাতেও বেশ কয়েকটি সেলাই করতে হয়েছে। তারা বর্তমানে ভোলা ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধানী রয়েছেন। এ ব্যাপারে ভোলা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান সাংবাদিক বেল্লাল নাফিজ।

শেয়ার করুন....

আরো দেখুন