উপকূলীয় জেলা ভোলায় করোনা সংক্রমণ রোগীর সংখ্যা ও মৃত্যুর সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে এ জেলার মানুষ। ভোলায় ২৪ ঘন্টায় করোনায় নতুন করে আরও ১ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার বাড়ি লালমোহন উপজেলায়। তবে, ২৪ ঘন্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও ৩ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, ভোলা ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডাক্তার নিরুপম সরকার ২৪ ঘন্টায় ওই হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে ৩ জনের মৃত্যুর খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেন। এ নিয়ে এ পর্যন্ত করোনা ও উপসর্গ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ৩৪ জন।
বৃহস্পতিবার জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, ২৪ ঘন্টায় ২৫০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে আরও ১১৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর আগের দিন শনাক্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড ছিল ১৭৬ জন। এ নিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩ হাজার ৫শ’ ১৩ জন। ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তদের মধ্যে ভোলা সদর উপজেলায় ৪৪ জন, দৌলতখানে ৮ জন, বোরহানউদ্দিনে ১৬ জন, লালমোহনে ১২ জন, চরফ্যাশনে ২৫ জন ও তজুমদ্দিনে ৮ জন রয়েছে। করোনায় এ পর্যন্ত সুস্থ্য হয়েছেন ২ হাজার ৩৪০ জন।

এ বিষয়ে সিভিল সার্জন ডাক্তার কে এম শফিকুজ্জামান জানান, করোনা উপসর্গ নিয়ে ৩ জনের মৃত্যুর খবরটি খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, ভোলায় করোনা সংক্রমণ রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। কারণ হিসাবে বলেন, এ জেলার অনেক মানুষ মাস্ক পরেনা। এ ছাড়া করোনা সংক্রমণ রোগীরা লক্ষ্মণ গোপন করে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ফলে স্বাস্থ্যকর্মীরাও আক্রান্ত হচ্ছেন। যারা করোনায় আক্রান্ত তারা কোয়ারান্টাইনে না থেকে তার আগেই বের হয়ে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, এ থেকে রক্ষা পেতে হলে সবাইকে অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। প্রচারনা বাড়াতে হবে। ইউনিয়ন কমিটির নিয়মিত মনিটরিং করতে হবে। সর্বোপরি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, মসজিদের ইমাম, শিক্ষকসহ গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।