1. info@dailyjanatarbarta.com : Admin :
  2. admin2@dailyjanatarbarta.com : Editor Janatar Barta : Editor Janatar Barta
  3. araf@yopmail.com : araf :
  4. editor@dailyjanatarbarta.com : JanatarBarta Editor : JanatarBarta Editor
  5. test@yopmail.com : test :
সংবাদ শিরোনাম :
ভোলার মেঘনায় মালবাহী কার্গোতে ডাকাতি! দূই জলদস্যুকে ধরে ফেললো কোস্ট গার্ড প্রকাশিত কাল্পনিক সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানালেন বিজেপি নেতা জামালউদ্দিন চকেট সিপিডিএ ‘র দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে ক্যারিয়ার উন্নয়ন সপ্তাহ ১৫-২১ অক্টোবর সারাদেশে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু ৬ মাস ২১ দিন পর দলীয় কার্যালয়ে রিজভী কোনো নির্বাচন নির্বাচন খেলা হবে না: ওবায়দুল কাদের সারাদেশে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে মাঠ প্রশাসন মূল চালিকাশক্তি: প্রধানমন্ত্রী ভোলার মেঘনায় ৮ টি মালবাহী কার্গো জাহাজে ডাকাতির অভিযোগ! পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত

প্রায় এক যুগ এর কাছাকাছি বন্ধ বেতাগী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক্স-রে কক্ষে !

  • পোস্টের সময়কাল : মঙ্গলবার, ১০ আগস্ট, ২০২১
  • ৭৮ মোট ভিউস্

মোঃখাইরুল ইসলাম মুন্না

বরগুনা প্রতিনিধি

বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জনবল সংকটের কারণে ১০ বছর ধরে বন্ধ রয়েছে এক্স-রে মেশিন। দীর্ঘদিন ধরে অযত্ন-অবহেলায় হাসপাতালের একটি তালাবদ্ধ রুমে পড়ে আছে অর্ধ কোটি টাকা মূল্যের এই এক্স-রে মেশিনটি।

উপজেলার একমাত্র সরকারি হাসপাতালটিতে এক্স-রে মেশিন চালু না থাকায় ভোগান্তিতে পড়ছেন রোগীরা। বাধ্য হয়ে বেসরকারি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে গিয়ে বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বারবার চিঠি দিয়েও সমাধান হয়নি।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি ৫০ শয্যার। এখানে প্রতিদিন আউটডোরে ৩শ’ থেকে সাড়ে ৩শ’ রোগী সেবা নেয়। আরও ৪০-৪৫ জন রোগী ভর্তি হয়। প্রতিদিন প্রায় ৪শ’ রোগীর সেবা দেওয়া হয় হাসপাতালে। রোগীর রোগ নির্ণয়ে সরকার এক্স-রে মেশিন সরবরাহ করলেও হাসপাতালে এক্স-রে সেবা চালু না থাকার কারণে সেটি মানুষের উপকারে আসছে না। ফলে সাধারণ মানুষ সরকারি সুবিধা বঞ্চিত হচ্ছে। প্রতিদিন বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন শত শত রোগী। বাধ্য হয়ে অধিক মূল্যে বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে তাঁদের এক্স-রে করিয়ে নিতে হচ্ছে।

সরেজমিনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের রেডিওলজি বিভাগে গিয়ে দেখা যায়, এক্স-রে মেশিনের কক্ষটি বন্ধ রয়েছে। কক্ষের সামনে মরিচা ধরা তালা ঝুলছে। দরজা জুড়ে রয়েছে মাকড়শার জাল।

মনিরুল ইসলাম নামের এক রোগীর স্বজন বলেন, ‘গত মাসে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় তাঁর এক আত্মীয়ের ডান পা ভেঙে যায়। হাসপাতালে নিয়ে এলে এক্স-রে করাতে বলা হয়। কিন্তু হাসপাতালে এক্স-রে মেশিন অকেজো থাকায় পাশের ক্লিনিক থেকে দ্বিগুণ টাকা দিয়ে করাতে হয়েছে। রোগীকে বাইরের ক্লিনিকে নিয়ে গেলে রোগীরও কষ্ট হয়, সঙ্গে থাকা স্বজনদেরও ভোগান্তি পোহাতে হয়।’

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) রবীন্দ্রনাথ সরকার বলেন, সরকারি হাসপাতালে ৭০ টাকায় এক্স-রে করানো যায়। কিন্তু এক্স-রে মেশিনটি অকেজো থাকায় বাইরে থেকে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকায় এক্স-রে করতে হচ্ছে। এর বাইরেও বাড়তি যাতায়াত খরচ হচ্ছে।

বেতাগী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা ডা. তেন মং বলেন, দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালের এক্স-রে মেশিনটি বন্ধ রয়েছে। জনবল সংকটের কারণে এক্স-রে মেশিনটি চালু করা যাচ্ছে না। একাধিকবার চাহিদা করা কথা জানিয়েছি। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বারবার চিঠি দিয়েও সমাধান হয়নি।

শেয়ার করুন....

আরো দেখুন