1. info@dailyjanatarbarta.com : Admin :
  2. admin2@dailyjanatarbarta.com : Editor Janatar Barta : Editor Janatar Barta
  3. araf@yopmail.com : araf :
  4. editor@dailyjanatarbarta.com : JanatarBarta Editor : JanatarBarta Editor
  5. test@yopmail.com : test :
সংবাদ শিরোনাম :
ভোলার মেঘনায় মালবাহী কার্গোতে ডাকাতি! দূই জলদস্যুকে ধরে ফেললো কোস্ট গার্ড প্রকাশিত কাল্পনিক সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানালেন বিজেপি নেতা জামালউদ্দিন চকেট সিপিডিএ ‘র দ্বিতীয় বর্ষপূর্তিতে ক্যারিয়ার উন্নয়ন সপ্তাহ ১৫-২১ অক্টোবর সারাদেশে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু ৬ মাস ২১ দিন পর দলীয় কার্যালয়ে রিজভী কোনো নির্বাচন নির্বাচন খেলা হবে না: ওবায়দুল কাদের সারাদেশে টিসিবির পণ্য বিক্রি শুরু মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে মাঠ প্রশাসন মূল চালিকাশক্তি: প্রধানমন্ত্রী ভোলার মেঘনায় ৮ টি মালবাহী কার্গো জাহাজে ডাকাতির অভিযোগ! পুলিশের রহস্যময় ভূমিকা সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত

দুই স্তরের মনিটরিংয়ে উঠে আসবে স্কুলের সমস্যা

  • পোস্টের সময়কাল : শুক্রবার, ১০ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪৫ মোট ভিউস্

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর দৈনিক দুই স্তরে মনিটরিং করবে সরকার। এক স্তরে থাকছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। আরেক স্তরে মাঠপ্রশাসন। উভয় স্তরকেই দৈনিক সরকারের কাছে স্কুলের সমস্যা উল্লেখ করে প্রতিবেদন পাঠাতে হবে। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) বৃহস্পতিবার এ নিয়ে পৃথক দুটি আদেশ জারি করেছে। এদিন ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়ার উপযোগী করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রস্তুতের লক্ষ্যে ৬৩ দফা নির্দেশনাও পাঠানো হয়। পাশাপাশি যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আবাসিক হোস্টেল আছে তাদের ১৪ দফা নির্দেশনা মেনে তা খুলতে হবে।

এর আগে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ মাঠপ্রশাসনকে ১১ দফা নির্দেশনা পাঠিয়েছে। তাতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতা এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে নিয়ে স্বাস্থ্যবিধি ও শিক্ষার্থীদের সুরক্ষা সংক্রান্ত করণীয় ব্যাপক প্রচারের ব্যবস্থা করতে বলা হয়। পাশাপাশি এতে কোনো এলাকায় করোনা সংক্রমণের অবনতি বা বিশেষ অবস্থার সৃষ্টি হলে জেলা প্রশাসনসহ শিক্ষা বিভাগকে অবহিত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সরকারি পরিকল্পনা অনুযায়ী, স্কুল খোলার পর এসএসসি ও এইচএসসি এবং পিইসি পরীক্ষার্থীদের ক্লাস সপ্তাহে ৬ দিন হবে। প্রথম থেকে চতুর্থ এবং ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির ক্লাস হবে সপ্তাহে একদিন। প্রাক-প্রাথমিক স্তরে শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস আপাতত বন্ধ থাকবে। মাউশি মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুকের স্বাক্ষরে বৃহস্পতিবার তিনটি চিঠি পাঠানো হয় মাঠপ্রশাসনে। এর মধ্যে একটিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান, সাধারণ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীসহ ৯ ধরনের ব্যক্তির কাছে ৬৩ দফা করণীয় নির্দেশিকা পাঠানো হয়। এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর’ (এসওপি)। এ ৯ ভাগের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধান ও শিক্ষার্থীদের জন্য যথাক্রমে ১৪ ও ৮টি অনুসরণীয় নির্দেশনা আছে। এছাড়া শিক্ষক, অভিভাবকদের জন্য ৮টি করে, প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির জন্য ৫টি এবং বাকিগুলো শিক্ষার উপজেলা, জেলা ও আঞ্চলিক প্রশাসনের কর্মকর্তাদের জন্য। পৃথক আরেক দুই নির্দেশনার একটিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের বেলা ৩টার মধ্যে এবং উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাদের প্রতিদিন বিকাল ৪টার মধ্যে মনিটরিং রিপোর্ট পাঠাতে বলা হয়েছে।

এতে বলা হয়, কোভিড-১৯ পরিস্থিতিতে দেশের সব মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর ১২ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে আবার চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। কোভিড-১৯ অতিমারির সংক্রমণ কমে এসেছে। তবে তা সম্পূর্ণ নির্মূল হয়নি। এ অবস্থায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর করোনার কারণে কোনো প্রকার সমস্যা হলে বিষয়টি দৈনিক ভিত্তিকে জানা এবং তাৎক্ষণিকভাবে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নেওয়ার লক্ষ্যে একটি মনিটরিং ছক প্রণয়ন করা হয়েছে। এতে সব উপজেলা-থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে মাউশির সংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক কার্যালয়ের আওতাধীন সব মাধ্যমিক পর্যায়ের সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রতিদিন মনিটরিং করে বিকাল ৪টার মধ্যে নির্ধারিত ছক অনুযায়ী শুধু সমস্যা চিহ্নিত প্রতিষ্ঠানের তথ্য মনিটরিং অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন উইংয়ের ইমেইলে (reopen.mcw@gmai.com) পাঠাতে হবে।

আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের বলা হয়, তারা মনিটরিং চেকলিস্টের তথ্য বেলা ৩টার মধ্যে গুগলডকসের মাধ্যমে মাউশিতে https://tinyurl.com/dshe-school-reopen লিংকে পাঠাবেন। নির্দেশনায় বলা হয়, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করার জন্য একটি ‘গাইডলাইন’ এবং একটি নির্দেশনাপত্র জারি করা হয়েছে। ওই গাইডলাইন, নির্দেশনাপত্র এবং কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সুপারিশের আলোকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়মিতভাবে সুরক্ষিত রাখার জন্য দৈনিক ভিত্তিতে মনিটরিং করার লক্ষ্যে একটি মনিটরিং চেকলিস্ট প্রস্তুত করা হয়েছে।

এদিকে, মাউশির পরিচালক (কলেজ ও প্রশাসন) অধ্যাপক শাহেদুল খবির চৌধুরী স্বাক্ষরিত চিঠিতে আবাসিক হোস্টেল খোলার জন্য কোভিড-১৯ ও ডেঙ্গু পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বলা হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে-একই বিছানায় একাধিক শিক্ষার্থী থাকতে পারবে না। ক্যাফেটেরিয়া, ডাইনিং, টিভি ও খেলার কক্ষ বন্ধ থাকবে। রান্নাঘর থেকে সরাসরি খাবার সরবরাহ হবে। একসঙ্গে নামাজ, প্রার্থনা ও সমাবেশের ক্ষেত্রেও একই নির্দেশনা মানতে হবে। হোস্টেলে উঠার আগে কোভিড-১৯ টেস্ট ফলাফল নেগেটিভ থাকতে হবে। বাথরুম, টয়লেট, বেসিন, ড্রেন ইত্যাদি দৈনিক জীবাণুমুক্ত করতে হবে। দিনে ও রাতে ঘুমানোর সময় অবশ্যই মশারি ব্যবহার করতে হবে। সংশ্লিষ্ট শিক্ষক-শিক্ষার্থী ছাড়া অন্য কেউ হোস্টেলে যাতায়াত করতে পারবে না।

শেয়ার করুন....

আরো দেখুন